Travel

Radha Ballav Thakur Bari ( Temple ) Address: Nutanganj, Bardhaman, West Bengal 713102

Click Here to Visit My Website

Very calm and peaceful place. The temple is very big and there are many Gods and Goddess idol like Radha-Ballav, Maa Annapurna, lord Shiva, Jagannath, Maa Durga, Maa Kali etc. Very old temple in Bardhhaman. The Temple area is very clean and clear. Ramayan gaan in Bengali is being performed there. Many pujas in many occasions are held there with great pomp and pleasure.  “Homa- Yagya” is done there sometimes in a big manner. The Ambience is great. A divine place for devotees. Hare Krishna hare Krishna, Krishna Krishna Hare Hare, Hare Rama Hare Rama, Rama Rama Hare Hare. Evening time is the best time to visit here. All traditional festivals are celebrated here ritualise. One can find inner peace of mind here.

Maharaja Tejchand Bahadur built the temples of Sri Sri Shyamsundarjiu, RadhaBollavijiu and Annapurnaziu, near the Raj School at Kamle Kamini Road, from Netaji Sarni at Nutanganj area of Bardhhaman in the 12th century. The architecture and beauty of both the temples are incomparable. Radha and Krishna idols of white stone were worshiped at Radha Ballavjiu Temple. Maharaja Tej Bahadur built a bridge over the river Banaka to facilitate the devotees to come here. Festivals are held here all year round in various times. Both the temples are currently renovated by using marble and glaze tallies.

In the traditional Hindu religion, there are thirteen rituals in twelve months. Significantly, the advent of Sri Krishna was in a very gloomy, contemptuous time. At that time, oppressive rulers made human life difficult. Then Lord Vishnu was born on human welfare called Srikrishna.

How to get there – Burdwan is about 100  km from Howrah. Local, mail, express trains are always coming.  Local, mail, express trains are also coming to Bardhaman from Asansol, Durgapur, Rampurhat, Suri, etc.  Buses from Kolkata, Krishnanagar, Navadwip, Purulia, Bankura, Barakar, Asansol, Durgapur, Sainthia, Rampurhat, Arambagh, Katoa, Kalna, etc. are also coming to Bardhaman Bus Stand. By town service bus one may come to Uttarphatak or Rajbari and by walking from here one may come to Radhaballav Temple .It is near half a kilometer walking distance from Rajbari or Uttarphatak. One can come here by Toto Rickshaw from the station or bus stand. When arriving from Kolkata or Asansol by the train then one can be reached here by the help of any of the above mentioned vehicles from the station.

শ্রী শ্রী শ্যামসুন্দরজীউ, রাধা বল্লভজীউ এবং অন্নপূর্ণাজীউ এর   মন্দির , বর্ধমান 

মহারাজ তেজচাঁদ বাহাদুর ১৭৪২ শকাব্দ তে বর্ধমানে বর্তমানে নূতনগঞ্জ এলাকার  নেতাজি সরনী থেকে কমলে কামিনী রোডে রাজ্ ইস্কুলের নিকট  শ্রী শ্রী শ্যামসুন্দরজীউ ,রাধা বল্লভজীউ এবং অন্নপূর্ণাজীউ এর   মন্দির তৈরী করান। মন্দির দুটির স্থাপত্যশৈলী  ও সৌন্দর্য্য অনুপম। রাধা বল্লভজীউ মন্দিরে শ্বেত পাথরের রাধা এবং কৃষ্ণ মূর্তি পূজিত হন।ঝুলন, রাস ,দোল প্রভৃতি উৎসব পালন করা হয়।মহারাজ তেজ বাহাদুর বাঁকার অপর তীরবর্তী ভক্তদের এখানে আসার সুবিধার জন্য বাঁকা নদীর উপর একটি সেতু নির্মাণ  করান। বিভিন্ন পার্বোপলক্ষে এখানে সারা বছর উৎসব পালন করা হয়। বর্তমানে উভয় মন্দিরই সংস্কার সাধনের দ্বারা নয়নাভিরাম করা হয়েছে।

খুব শান্ত ও শান্তিপূর্ণ জায়গা। মন্দিরটি খুব বড় এবং বর্ধমানের অনেক পুরাতন মন্দির যেমন রাধা-বল্লভ, মা অন্নপূর্ণা, প্রভু শিব, জগন্নাথ, মা দুর্গা, মা কালী ইত্যাদি অনেক দেবদেবী এবং দেবী প্রতিমা রয়েছে। মন্দিরের অঞ্চলটি অত্যন্ত পরিষ্কার এবং নয়নাভিরাম । এখানে বাংলা ভাষায় রামায়ণ গানের অনুষ্ঠান হয়। বিভিন্ন অনুষ্ঠানের নানারকম পূজা সেখানে প্রচণ্ড আড়ম্বর এবং আনন্দের সাথে অনুষ্ঠিত হয়। “হোম-যজ্ঞ” সেখানে কখনও কখনও বড় আকারেও করা হয়। পরিবেশটি দুর্দান্ত। ভক্তদের জন্য একটি ঐশ্বরিক স্থান। হরে কৃষ্ণ হরে কৃষ্ণ, কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে, হরে রাম হরে রাম, রাম রাম হরে হরে। সন্ধ্যার সময়টি এখানে দেখার উপযুক্ত সময়। সমস্ত ঐতিহ্যবাহী উত্সব এখানে আনুষ্ঠানিকভাবে পালন করা হয়। কেউ কেউ এখানে মনের অভ্যন্তরীণ শান্তি খুঁজে পেতে পারেন।

সনাতন ধর্মে বার মাসে তেরো পার্বণ ।এই বহুবিধ ধর্মানুষ্ঠানের মধ্যে শ্রীকৃষ্ণের আবির্ভাব তিথি তথা জন্মাষ্ঠমী অন্যতম। লক্ষণীয় , শ্রী কৃষ্ণের আবির্ভাবকালটি ছিল খুবই  গ্লানিযুক্ত , ধর্মের জন্য অবমাননাকর । তখন অত্যাচারী নৃপতিরা মানব জীবনকে দুর্বিষহ করে তুলে ছিলো। তখন ভগবান বিষ্ণু শ্রীকৃষ্ণ নামে মানবকল্যাণে জন্ম নিয়েছিলেন।

কিভাবে যাবেন — — বর্ধমান হাওড়া থেকে প্রায় ১০০ কিমি । লোকাল ,মেল্, এক্সপ্রেস ট্রেন  আসছে সর্বদা। আসানসোল ,দুর্গাপুর,রামপুরহাট,সিউড়ি প্রভৃতি থেকেও লোকাল ,মেল্, এক্সপ্রেস  ট্রেন আসছে বর্ধমানে। এছাড়াও কলকাতা,কৃষ্ণনগর,নবদ্বীপ,পুরুলিয়া,বাঁকুড়া, বরাকার ,আসানসোল,দুর্গাপুর,সাঁইথিয়া ,রামপুরহাট,আরামবাগ,কাটোয়া,কালনা প্রভৃতি স্থান থেকে বাস এসে দাড়াচ্ছে বর্ধমানের দুটি বাস স্ট্যান্ডে | টাউন সার্ভিস বাসে রাজবাড়ী বা উত্তরফটকে নেমে হাঁটা পথে আধ কিলোমিটার। স্টেশন বা বাস স্ট্যান্ড  থেকে টোটো রিক্সায় এখানে আসা যায়। কলকাতা বা আসানসোল থেকে এলে ,ট্রেনে এসে স্টেশন থেকে উপরিউক্ত যেকোনো যানবাহনে এখানে আসা যেতে পারে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.